Home রাজনীতি জন্মদিনেই মমতাজের ঘনিষ্ঠ নেতাদের শোকজ করলো তৃনমুল

জন্মদিনেই মমতাজের ঘনিষ্ঠ নেতাদের শোকজ করলো তৃনমুল

১৭ মার্চ নয়ার হাটের প্রধান মমতাজ বেগমের জন্মদিনের তাঁর ঘনিষ্ঠ দের দল বিরোধী কাজের অপরাধে শোকজ করেছে তৃনমূল কংগ্রেস। ১৯ মার্চ দলের দিনহাটা কেন্দ্রের প্রার্থী উদয়ন গুহের জন্মদিন। ওই দিন তিনি মনোনয়ন জমা করবেন।মমতাজের জন্মদিনে শোকজ খাওয়া নেতাদের ওই দিন উদয়নের পাশে দেখা যায় কিনা সেটাই দেখার।

নিজস্ব সংবাদদাতা, নয়ারহাটঃ  দিনহাটার তৃনমুলের বিধায়ক প্রকাশ্য বলেন, আমি নয়ার হাটে গেলে কারোও বাড়িতে পিকনিক হয় কেন? সেটা যে নয়ারহাটের প্রধান মমতাজ বেগমের বাড়ি তা কারোও বুঝতে অসুবিধা হয় না। আর সেই পিকনিকের প্রধান উদ্যোক্তা মিলন সেন আর বাবলা নন্দী তা সবাই জানে।   নয়ারহাটে মীর হুমায়ুন কবিরের রন্ধন কক্ষে কি রান্না হবে তা সবার অজানা হলেও মিলন বাবলার অজানা নয়। আর ১৭ মার্চ প্রধান নয়ারহাটের প্রধান মমতাজ বেগমের জন্মদিন। সেই দিন সকালে ফেসবুকে পোস্ট করেন তৃনমুল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি পার্থ প্রতিম রায়। তিনি জানান, রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশে মিলন বাবলা সহ দিনহাটার ছয়  নেতাকে শোকজ করা হয়েছে। অবশ্য সেই তালিকায় মমতাজ বেগম বা তাঁর স্বামী জেলা পরিষদের কৃষি কর্মাধক্ষ্য মীর হুমায়ুনের নাম নেই।

মমতাজ বেগমের জন্মদিন
মমতাজ বেগম ও হুমায়ুন কবির

মমতাজ বেগম বলেন, অনেকেই জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আজকে। সকালে জেলা সভাপতির ফেসবুকের মাধ্যমে দলের ছয়জনকে শোকজ করার বিষয়টা শুনি। আমরা দলের অনুগত সৈনিক। দল যেভাবে নির্দেশ দিবে সেভাবেই মেনে চলবো।

মিলন সেন বলেন, ফেসবুকে শোকজের কথা দেখেছি। হাতে এখনো চিঠি পায়নি। দলের কোনো নির্দেশের বাইরে যায়নি। বিধায়ক এখনো প্রচারের জন্য ডাকেন নি।

কি পোস্ট করেছেন পার্থ

এদিন সকালে ফেসবুকে লেখেন পার্থ প্রতিম রায়। তিনি লেখেন “ দিনহাটা বিধানসভার তৃণমূল নেতৃত্ব,কর্মী -সমর্থক ও সাংবাদিক বন্ধুদের জানানোর জন্য —

রাজ্য তৃণমূল কংগ্রেসের নির্দেশে দিনহাটা বিধানসভার তৃণমূল কংগ্রেসের সদস্য ও পদাধিকারী মীর ইকবাল কবীর, মিলন সেন, বাবলা নন্দী, অজয় রায়, সাবির সাহা চৌধুরী, তরনীকান্ত বর্মন মহাশয়দের দলের নির্দেশ অনুযায়ী কাজ না করার জন্য আজ ১৭/০৩/২০২১ তারিখে শোকজ করা হল। তিনদিনের মধ্যে সন্তোষজনক উত্তর না পাওয়া গেলে দলের নির্দেশেই কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। – পার্থ প্রতিম রায়, সভাপতি, কোচবিহার জেলা তৃণমূল কংগ্রেস কমিটি”

এর পরেই শোরগোল পড়েছে দিনহাটায়।

 

শোকজ খাওয়া নেতাদের পরিচয়

 

এদিন শোকজ খাওয়া নেতারা প্রত্যেকেই দিনহাটার বিধায়ক উদয়ন বিরোধী হিসেবে পরিচিত। বাবলা নন্দী , মিলন সেন , মীর ইকবাল কবির নয়ার হাটের নেতা। মীর হুমায়ুন কবিরের ঘনিষ্ট হিসেবে এরা পরিচিত। শালমারার তারিনি রায় বিধায়কে পুনরায় টিকিট পাওয়ার বিরোধিতা করেছিল। অজয় রায় ও সাবির সাহা দুই যুব নেতাই দিনহাটা শহরের বাসিন্দা। তৃনমুলের অভিযোগ এই নেতারা কেউ দলের হয়ে প্রচার করছে না। বরং তলে তলে বিজেপির সাথে যোগাযোগ রাখছে।

 

কেন এই রাজনৈতিক কোন্দল

রাজনৈতিক মহলের দাবি, দিনহাটা বিধান সভায় নয়ার হাটের হুমায়ুন কবিরকে তৃনমুলের প্রার্থী হিসেবে চেয়েছিল এই লবি। দল সেই দাবি মেনে না নিয়ে উদয়ন গুহকে ফের প্রার্থী করে। তারপর থেকেই বিরুপ এরা।

 

কেন এই দ্বন্দ্ব

নয়ারহাটে বিধায়ক অনুগামীদের সাথে প্রধান অনুগামীদের দ্বন্দ্ব দীর্ঘদিন ধরেই। লোকসভা নির্বাচনের সময় দলের প্রার্থীকে জেতানোর দায়িয়্ব ছিল তৎকালীন ব্লক সভাপতি হুমায়ুন কবিরের কাধে। হুমায়ুন যাতে সফল না হন সেজন্য উঠে পড়ে লাগে দলের একটি অংশ। তারা তলে তলে বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামানিকের সাথে যোগাযোগ করে বলে অভিযোগ। দিনহাটা-২ ব্লকে তৃনমূল লিড দিলেও তা অল্প ছিল। ভোটের পরে দল বল সভাপতি পদ থেকে হুমায়ুন কবিরকে অব্যাহতি দেয়।

 

এবারে উলট পুরান

এই বিধানসভায় দিনহাটায় বিজেপি প্রার্থী সেই নিশীথ প্রামানিক। তবে লোকসভায় যারা নিশীথের পক্ষে ভোট করিয়েছিলেন তারা এবার তৃনমুলের পক্ষ্যে। দলের অভ্যন্তরে জোর আলোচনায় উঠে আসছে অন্য বিষয়। লোকসভায় তৃনমুল কে ভোট দেওয়া লবির  একটি বড় অংশ এবারে নিশীথের সাথে যোগাযোগ রাখছে।

জন্মদিনে মনোনয়ন জমা দেবেন উদয়ন গুহ

১৯ মার্চ উদয়ন গুহের জন্মদিন। আর সেই দিনে মনোনয়ন জমা দেওয়ার কথা তাঁর। মমতাজের জন্মদিনে শোকজ খাওয়া নেতাদের ওই দিন উদয়নের পাশে দেখা যায় কিনা সেটাই দেখার।

NO COMMENTS

Leave a Reply

%d bloggers like this:
Skip to toolbar